ভারত-বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ম্যাচে গাইবেন রুনা লায়লা

নভেম্বর ৭, ২০১৯
দ্বারা Omar Faruque

বাংলাদেশের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম প্রতিপক্ষ শক্তিশালী ভারত। শুধু তাই নয়, দু’দল খেলবে প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্ট ম্যাচও। এই সফরে রয়েছে তিনটি টি-টোয়েন্টি ও দুটি টেস্ট ম্যাচ। টেস্ট ম্যাচ দুটি রয়েছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আওতায়।

কলকাতার ইডেন গার্ডেনে অনুষ্ঠিতব্য দ্বিতীয় টেস্টে দিবারাত্রির ম্যাচটিতে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের নতুন সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীর আমন্ত্রিত অতিথি।

ভারত বাংলাদেশের এই টেস্ট ম্যাচ নিয়ে বিশেষ পরিকল্পনা করছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। লর্ডসের মতো কলকাতা ইডেন গার্ডেনেও বেল বাজিয়ে টেস্ট শুরুর রীতি রয়েছে। ভারতের মাটিতে প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্ট ম্যাচটি বেল বাজিয়ে শুরুর কথা রয়েছে।

ম্যাচটিকে স্মরণীয় করে রাখতে টেস্ট শুরুর আগে সংক্ষিপ্তাকারে অনুষ্ঠিত হবে গান পরিবেশনা। আর সেই অনুষ্ঠানেই গান পরিবেশনা করতে দেখা যাবে উপমহাদেশের বিখ্যাত কন্ঠশিল্পী রুনা লায়লা। তিনি ছাড়াও সেখানে পরিবেশনা করবেন ভারতের শ্রেয়া ঘোষাল।

প্রায় এক মাসের এই দীর্ঘ সফরটি শুরু হয়েছে (৩ নভেম্বর) টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়ে। প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচেই ভারতের বিপক্ষে এক সুবিশাল জয় ছিনিয়ে আনেন টাইগাররা। আগামী ১৪ নভেম্বর মাঠে গড়াবে প্রথম টেস্ট ও দ্বিতীয় টেস্ট শুরু ২২ নভেম্বর।
জানা গেছে, কলকাতা টেস্টে উপস্থিত থাকা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য বিশেষ স্মারকের ব্যবস্থা করছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। তাকে বেঙ্গল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (সিএবি) পক্ষ থেকে ক্রিকেট বলের আকৃতির স্মারক ও স্বর্ণের মুদ্রা দিয়ে সম্মানিত করার পরিকল্পনা রয়েছে।
ইডেন গার্ডেনে বাংলাদেশ এবং ভারত প্রথমবারের মতো দিবা-রাত্রীর টেস্ট খেলবে। ওই টেস্ট আবার গোলাপি বলে খেলা হবে। বিভিন্ন দিক থেকেই তাই কলকাতা টেস্টটি ঐতিহাসিক হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও সেখানে উপস্থিত থাকবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। প্রথম দু’দিন দেখা যেতে পারে ভারতের সমস্ত টেস্ট অধিনায়ককে। প্রথম দিন জাতীয় সঙ্গীতের সময় দু’দলের ক্রিকেটারদের সঙ্গে সাবেক অধিনায়কদেরও দেখা যেতে পারে। এছাড়াও থাকবেন টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা, দাবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বিশ্বনাথন আনন্দ, ব্যাডমিন্টন তারকা পিভি সিন্ধুকেও।
ম্যাচ শুরুর আগে প্রচার হবে দারাজ নিবেদিত ‘ক্রিকেট ম্যানিয়া’। ম্যাচের মধ্য বিরতিতে বাংলালিংক ‘মিড উইকেট’। ম্যাচ শেষে গিয়ার নিবেদিত ‘ক্রিকেট এক্সট্রা’ এবং গাজী গ্রুপ নিবেদিত ‘ক্রিকেট হাইলাইটস’।

Source: Daily Bangladesh.
Photo: Collected

SalamToday কন্টেন্ট পাওয়া যাবেঃ